Your Trusted Partner

Category: Marketing Idea

মাসিক ভিজিটর বিবেচনায় জনপ্রিয় সেরা ১৫টি সোশ্যাল মিডিয়া সাইট

১। Facebookমাসিক ভিজিটরঃ ৯০ কোটি। ওয়েবসাইটঃ http://www.facebook.com/

 

২। Twitter মাসিক ভিজিটরঃ ৩১ কোটি। ওয়েবসাইটঃ http://www.twitter.com/

 

৩। LinkedIn – মাসিক ভিজিটরঃ ২৫ কোটি ৫০ লাখ। ওয়েবসাইটঃ http://www.linkedin.com/

 

৪। Pinterest – মাসিক ভিজিটরঃ ২৫ কোটি। ওয়েবসাইটঃ http://www.pinterest.com/

 

৫। Google Plus+ – মাসিক ভিজিটরঃ ১২ কোটি। ওয়েবসাইটঃ http://plus.google.com/

 

৬। Tumblr – মাসিক ভিজিটরঃ ১১ কোটি। ওয়েবসাইটঃ http://www.tumblr.com/

 

৭। Instagram – মাসিক ভিজিটরঃ ১০ কোটি। ওয়েবসাইটঃ http://www.instagram.com/

 

৮। VK – মাসিক ভিজিটরঃ ৮ কোটি। ওয়েবসাইটঃ http://www.vk.com/

 

৯। Flickr – মাসিক ভিজিটরঃ ৬ কোটি ৫০ লাখ। ওয়েবসাইটঃ http://www.flickr.com/

 

১০। Vine – মাসিক ভিজিটরঃ ৪ কোটি ২০ লাখ। ওয়েবসাইটঃ http://www.vine.co/

 

১১। Meetup – মাসিক ভিজিটরঃ ৪ কোটি। ওয়েবসাইটঃ http://www.meetup.com/

 

১২। Tagged – মাসিক ভিজিটরঃ ৩ কোটি ৮০ লাখ। ওয়েবসাইটঃ http://www.tagged.com/

 

১৩। Ask.fm মাসিক ভিজিটরঃ ৩ কোটি ৭০ লাখ। ওয়েবসাইটঃ http://www.ask.fm/

 

১৪। MeetMe – মাসিক ভিজিটরঃ ১ কোটি ৫৫ লাখ। ওয়েবসাইটঃ http://www.meetme.com/

 

১৫। ClassMates – মাসিক ভিজিটরঃ ১ কোটি ৫০ লাখ। ওয়েবসাইটঃ http://www.classmates.com/

 

তথ্যসূত্রঃ eBizMBA

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং নিয়ে সেরা ৯টি ইংলিশ ব্লগ !

১। Jon Loomer – মেইনলি ফেসবুক মার্কেটিং নিয়ে ফোকাস করা হয়েছে। ওয়েবসাইটঃ http://www.jonloomer.com/

২। RazorSocial – সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর টুলসগুলো নিয়ে ফোকাস করা হয়েছে। ওয়েবসাইটঃ http://www.razorsocial.com/blog/

৩। Socialmouths – সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং নিয়ে বিভিন্ন অ্যাডভাইস পাবেন এই ব্লগ থেকে। ওয়েবসাইটঃ http://socialmouths.com/blog/

৪। Post Planner –  মেইনলি ফেসবুক মার্কেটিং নিয়ে ফোকাস করা হয়েছে। ওয়েবসাইটঃ http://www.postplanner.com/blog

৫। Danny Brown – লেখক এই ব্লগটিতে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর উপর অনেকগুলো কেস স্টাডি শেয়ার করেছে। ওয়েবসাইটঃ http://dannybrown.me/

৬। Boom Social – টিপস, অ্যাডভাইস , কেস স্টাডি সব পাবেন এটাতে। ওয়েবসাইটঃ http://kimgarst.com/blog/

৭। Jenn’s Trends – লেখক এই ব্লগে খুবই সিম্পলি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং নিয়ে সংক্ষিপ্ত আকারে আলোচনা করেছে। চমৎকার একটা ব্লগ আমার মতে। ওয়েবসাইটঃ http://www.jennstrends.com/

৮। Top Dog Social Media – টিপস, অ্যাডভাইস , কেস স্টাডি আর লেটেস্ট নিউজ পাবেন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং নিয়ে। ওয়েবসাইটঃ http://topdogsocialmedia.com/blog/

৯। Simply Measured – বেসিক্যালি এখানে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর ট্রেন্ড আর অ্যানালাইসিসগুলো ফোকাস করা হয়েছে।  ওয়েবসাইটঃ http://simplymeasured.com/blog/

 

Writer : Mahdi Md Alauddin

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং শিখলে কোন কোন ফিল্ডে কাজ করতে পারবো ?

অনেকেই আমাকে আস্ক করে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং শিখতে চাচ্ছে কিন্তু কনফিউজড এই স্কিলটাকে কীভাবে কাজে লাগানো যায় আরেকটু সোজা বাংলায় যদি বলি কীভাবে এটা শিখে আর্ন করা যায় তা জানে না। আজকের লিখাটা তাদের জন্য। তার আগে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বা এসএমএম টা আসলে কি এটা ক্লিয়ার করি।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং হচ্ছে ইন্টারনেট মার্কেটিং এর অন্যতম বড় এবং গুরুত্বপূর্ন শাখা যেখানে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেলগুলোকে যেমন ফেসবুক, লিংকডিন, টুইটার, পিন্টারেস্ট ইত্যাদি ব্যবহার করে সহজেই টার্গেটেড কাস্টমারের কাছে রিচ করা হয় নিম্মোক্ত উদ্দেশ্যে –

১। বিজনেস প্রমোশনের জন্য,

২। বিজনেস ব্র্যান্ডিং এর জন্য,

৩। সেলস গ্রোথ বাড়ানোর জন্য,

৪। ওয়েবসাইট বা ব্লগে টার্গেটেড ট্রাফিক ড্রাইভ করানোর জন্য।

এবার আসি কোন কোন ফিল্ডে এই স্কিলটা কাজে লাগাতে পারবেন –

১। যদি আপনি কোন বিজনেস স্টার্ট করে থাকেন যার টার্গেটেড কাস্টমারেরা কোন নির্দিষ্ট সোশ্যাল মিডিয়াতে খুব বেশি অ্যাক্টিভ। তাহলে আপনার বিজনেসের জন্য অন্যান্য মার্কেটিং টেকনিকের পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংটা খুব গুরুত্বপুর্ন।

২। কোন নির্দিষ্ট টপিকের উপর ভিত্তি করে আপনার বা আপনার ক্লাইন্টের ব্লগ বা সাইট আছে এবং টার্গেটেড ভিজিটররা সোশ্যাল মিডিয়াগুলোতে অনেক বেশি একটিভ। সুতরাং এ ক্ষেত্রেও ব্লগ বা সাইটে প্রচুর পরিমানে টার্গেটেড ট্রাফিক ড্রাইভ করানোর জন্য সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং টেকনিকটা ব্যবহার করতে পারবেন।

৩। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং ভালভাবে জানা থাকলে সরাসরি অথবা ফ্রিল্যান্স আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে বাইরের বিভিন্ন কোম্পানিতে নিম্মোক্ত পজিশনে জব করার সুযোগ আছে –

# Community Manager – ফ্যানদের সাথে ইন্টারেক্ট করার জন্য।

# Content Curator – ফ্যানদের ইন্টারেস্টের উপর বেইজ করে অন্যদের করা বেস্ট কন্টেন্টগুলো প্রভাইড করা।

# Analyst – সোশ্যাল মিডিয়াতে কোম্পানির ব্র্যান্ড পারফরমেন্স অ্যানালাইসিস করা।

# Strategist – যার কাজ হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়াতে কোম্পানির লং টার্ম স্ট্র্যাটাজি সেট করা।

# Content Creator – স্ট্র্যাটাজির উপর বেইজ করে সোশ্যাল মিডিয়াতে পাবলিশের জন্য নতুন নতুন কন্টেন্ট ডেভলপ করা।

তবে শুধুমাত্র বড় কোম্পানিগুলোতে এভাবে আলাদা আলাদা জব পোস্ট থাকে কিন্তু ছোট কোম্পানিগুলোর ক্ষেত্রে একজন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটারই উপরের সবগুলো রোল প্লে করে থাকে।

এছাড়াও ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসগুলোতে যেমন আপওয়ার্ক, ফাইভার ইত্যাদি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর উপর অনেক ছোট ছোট কাজ থাকে। যেমন – টুইটার, পিন্টারেস্ট, টাম্বলার অথবা ইন্সটাগ্রামের ফলোয়ার বাড়ানো, ফেসবুক পেইজের লাইক বাড়ানো, অনেকগুলো সোশ্যাল প্রোফাইল তৈরি করা ইত্যাদি।

আশা করি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর ক্যারিয়ারের ব্যাপারে আপনাদের কিছুটা হলেও ক্লিয়ার করতে পেরেছি। কোন পয়েন্ট আমি মিস করে থাকলে কমেন্টে জানাবেন।

ধন্যবাদ 🙂

Writer : Mahdi Md Alauddin

কীভাবে কমিউনিটি বিল্ডআপ করে সস্তায় ফেসবুক মার্কেটিং করবেন !

টাইটেলটাতে সম্ভবত কঠিন শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে ! তবে আহামরিক কোন কঠিন টেকনিক আমি আজকে আপনাদের নিকট শেয়ার করছি না। এটার ব্যাপারে আপনাদের অনেকেই ধারনা আছে বিশেষ করে যারা ফেসবুকে মার্কেটিং করে থাকেন। ফেসবুকে সাধারনত দু ধরনের মার্কেটিং টেকনিক অ্যাপ্লাই করা যায় –

# একটা হল সরাসরি ফেসবুককে অর্থ দিয়ে নিজের পন্য বা সেবার মার্কেটিং করা

# দ্বিতীয়ত হল নিজের প্রোফাইলের মাধ্যমে কমিউনিটি বিল্ডআপ করে সেসকল ফেসবুক ফ্রেন্ডদের নিকট আপনার পন্য বা সেবার মার্কেটিং করা। এটা যদিও বা দীর্ঘমেয়াদী টেকনিক তবে যাদের ফেসবুকে সাময়িকভাবে অর্থ প্রদান করে মার্কেটিং করা পসিবল না তারা শুধুমাত্র এটাকে কাজে লাগাতে পারেন। তবে একটা কথা সেটা হল যখন আপনি এই টেকনিকটা অ্যাপ্লাই করবেন তার আগে আপনার কমিউনিটিতে নিজের গ্রহনযোগ্যতাটা বাড়াতে হবে। মানে আপনি মার্কেটিং পারপাসে ফ্রেন্ড বাড়াচ্ছেন কিন্তু এমন না হয় তারা স্পামার হিসেবে গন্য করলো। আরেকটু ক্লিয়ার করে বলছি অলওয়েজ তাদের কাছে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস নিয়ে ঘ্যানোর ঘ্যানোর করা যাবে না। স্বাভাবিকভাবে ফেসবুক মানুষ যেভাবে ব্যবহার করে সেভাবেই ব্যবহার করবেন। মাঝে মাঝে ক্রিয়েটিভলি তাদের কাছে মার্কেটিং করবেন। এবং এভাবে কেউ আপনার প্রতি বিরক্ত হবে না।

এখন কথা হল কীভাবে আপনি আপনার প্রোফাইলের মাধ্যমে কমিউনিটি বিল্ডআপ করবেন ?

কমিউনিটি বিল্ডআপের জন্য ফেসবুকে অনেক গ্রুপ এবং পেইজ আছে যেগুলোতে আপনি অ্যাক্টিভ থেকেও আপনার প্রোফাইলের জন্য ফ্রেন্ড বাড়াতে পারেন। আমার দেখামতে যারা ফিমেইল মার্কেটার তারা এইসব গ্রুপ এবং পেইজ ইউজ করে দ্রুত কমিউনিটি বিল্ডআপ করতে পারবেন। ছেলেদের ক্ষেত্রে এটা একটূ স্লো কাজে দিবে। তবে যারা ফিমেইল নামে ফেইক আইডি খুলে এটা করতে চান করতে পারেন। আমি এ ব্যাপারটায় নিরপেক্ষ থাকলাম। কারন ১০০% পিউরভাবে মার্কেটিং করে কাজ করাটা সবার জন্যই টাফ। এবং বেশিরভাগ মার্কেটার দ্রুত ফলাফলের আশায় সিক্রেটলি কিছু কিছু টেকনিক ইউজ করে যা কাম্য নয় সাধারনভাবে দেখলে। কিন্তু কমার্শিয়াল সেন্সে দেখলে ইটস অল অ্যাবাউট মার্কেটিং ! যদি বলেন স্পামিং করাটা কিভাবে মার্কেটিং হল ! তবে বলবো, যে টেকনিকটা সাধারন মানুষের চোখে অস্বাভাবিক হয়ে ধরা পড়ছে না তাকে আপনি স্প্যামিং বলতে পারবেন না। যাই হোক ওসব কথা বাদ দিয়ে মেইন পয়েন্টে আসি। নীচে আমি কিছু গ্রুপ এবং পেইজ এর লিঙ্ক শেয়ার করেছি যেগুলোকে ইউজ করে আপনি কমিউনিটি বিল্ডআপ করতে পারবেন। ফেসবুকে সার্চ করলে এরকম হাজারো গ্রুপ এবং পেইজ পাবেন তবে আমার কাছে এগুলো সবচেয়ে বেশি অ্যাক্টিভ মনে হয়েছে –

ফেসবুক গ্রুপঃ

১। https://www.facebook.com/groups/905682709444235/

২। https://www.facebook.com/groups/904989116212024/

৩। https://www.facebook.com/groups/Frendislife/

৪। https://www.facebook.com/groups/856575997696013/

৫। https://www.facebook.com/groups/1614481085482968/

৬। https://www.facebook.com/groups/1472263636392733/

৭। https://www.facebook.com/groups/seniorjuniorfriends/

৮। https://www.facebook.com/groups/Real.Vip.cafe/

৯। https://www.facebook.com/groups/677831578920795/

১০। https://www.facebook.com/groups/GiveUrHands/

১১। https://www.facebook.com/groups/InfoTumiMistiKoreDustoBoloSunteValoLageBANGLADESH/

১২। https://www.facebook.com/groups/tuhinkhan/

১৩। https://www.facebook.com/groups/Kazi.Shofiqul.Islam1/

ফেসবুক পেইজঃ

১। https://www.facebook.com/mominul6

২। https://www.facebook.com/princeshourob

৩। https://www.facebook.com/add.me.fs14

এর বাইরে কারো কোন গ্রুপ বা পেইজের অ্যাড্রেস জানা থাকলে কমেন্টে জানাতে পারেন তবে অবশ্যই সেই গ্রুপ বা পেইজ অ্যাক্টিভ থাকতে হবে। আর আপনারা তো জানেনই শুধু গ্রুপে বেশি মেম্বার আর পেইজে বেশি লাইক থাকলে তা অ্যাক্টিভ না, অ্যাঙ্গেইজমেন্টটা বড় ফ্যাক্টর এখানে !

নোটঃ এই টেকনিকে আপনি কান্ট্রি অ্যাডভান্টেজ পাবেন তবে টার্গেটেড কাস্টমারগুলোকে পরবর্তিতে ফিল্টার করে বের করতে হবে।

Writer : Mahdi Md Alauddin

© 2020 Webdesigncr3ator

Theme by Anders NorenUp ↑