টাইটেলটাতে সম্ভবত কঠিন শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে ! তবে আহামরিক কোন কঠিন টেকনিক আমি আজকে আপনাদের নিকট শেয়ার করছি না। এটার ব্যাপারে আপনাদের অনেকেই ধারনা আছে বিশেষ করে যারা ফেসবুকে মার্কেটিং করে থাকেন। ফেসবুকে সাধারনত দু ধরনের মার্কেটিং টেকনিক অ্যাপ্লাই করা যায় –

# একটা হল সরাসরি ফেসবুককে অর্থ দিয়ে নিজের পন্য বা সেবার মার্কেটিং করা

# দ্বিতীয়ত হল নিজের প্রোফাইলের মাধ্যমে কমিউনিটি বিল্ডআপ করে সেসকল ফেসবুক ফ্রেন্ডদের নিকট আপনার পন্য বা সেবার মার্কেটিং করা। এটা যদিও বা দীর্ঘমেয়াদী টেকনিক তবে যাদের ফেসবুকে সাময়িকভাবে অর্থ প্রদান করে মার্কেটিং করা পসিবল না তারা শুধুমাত্র এটাকে কাজে লাগাতে পারেন। তবে একটা কথা সেটা হল যখন আপনি এই টেকনিকটা অ্যাপ্লাই করবেন তার আগে আপনার কমিউনিটিতে নিজের গ্রহনযোগ্যতাটা বাড়াতে হবে। মানে আপনি মার্কেটিং পারপাসে ফ্রেন্ড বাড়াচ্ছেন কিন্তু এমন না হয় তারা স্পামার হিসেবে গন্য করলো। আরেকটু ক্লিয়ার করে বলছি অলওয়েজ তাদের কাছে আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস নিয়ে ঘ্যানোর ঘ্যানোর করা যাবে না। স্বাভাবিকভাবে ফেসবুক মানুষ যেভাবে ব্যবহার করে সেভাবেই ব্যবহার করবেন। মাঝে মাঝে ক্রিয়েটিভলি তাদের কাছে মার্কেটিং করবেন। এবং এভাবে কেউ আপনার প্রতি বিরক্ত হবে না।

এখন কথা হল কীভাবে আপনি আপনার প্রোফাইলের মাধ্যমে কমিউনিটি বিল্ডআপ করবেন ?

কমিউনিটি বিল্ডআপের জন্য ফেসবুকে অনেক গ্রুপ এবং পেইজ আছে যেগুলোতে আপনি অ্যাক্টিভ থেকেও আপনার প্রোফাইলের জন্য ফ্রেন্ড বাড়াতে পারেন। আমার দেখামতে যারা ফিমেইল মার্কেটার তারা এইসব গ্রুপ এবং পেইজ ইউজ করে দ্রুত কমিউনিটি বিল্ডআপ করতে পারবেন। ছেলেদের ক্ষেত্রে এটা একটূ স্লো কাজে দিবে। তবে যারা ফিমেইল নামে ফেইক আইডি খুলে এটা করতে চান করতে পারেন। আমি এ ব্যাপারটায় নিরপেক্ষ থাকলাম। কারন ১০০% পিউরভাবে মার্কেটিং করে কাজ করাটা সবার জন্যই টাফ। এবং বেশিরভাগ মার্কেটার দ্রুত ফলাফলের আশায় সিক্রেটলি কিছু কিছু টেকনিক ইউজ করে যা কাম্য নয় সাধারনভাবে দেখলে। কিন্তু কমার্শিয়াল সেন্সে দেখলে ইটস অল অ্যাবাউট মার্কেটিং ! যদি বলেন স্পামিং করাটা কিভাবে মার্কেটিং হল ! তবে বলবো, যে টেকনিকটা সাধারন মানুষের চোখে অস্বাভাবিক হয়ে ধরা পড়ছে না তাকে আপনি স্প্যামিং বলতে পারবেন না। যাই হোক ওসব কথা বাদ দিয়ে মেইন পয়েন্টে আসি। নীচে আমি কিছু গ্রুপ এবং পেইজ এর লিঙ্ক শেয়ার করেছি যেগুলোকে ইউজ করে আপনি কমিউনিটি বিল্ডআপ করতে পারবেন। ফেসবুকে সার্চ করলে এরকম হাজারো গ্রুপ এবং পেইজ পাবেন তবে আমার কাছে এগুলো সবচেয়ে বেশি অ্যাক্টিভ মনে হয়েছে –

ফেসবুক গ্রুপঃ

১। https://www.facebook.com/groups/905682709444235/

২। https://www.facebook.com/groups/904989116212024/

৩। https://www.facebook.com/groups/Frendislife/

৪। https://www.facebook.com/groups/856575997696013/

৫। https://www.facebook.com/groups/1614481085482968/

৬। https://www.facebook.com/groups/1472263636392733/

৭। https://www.facebook.com/groups/seniorjuniorfriends/

৮। https://www.facebook.com/groups/Real.Vip.cafe/

৯। https://www.facebook.com/groups/677831578920795/

১০। https://www.facebook.com/groups/GiveUrHands/

১১। https://www.facebook.com/groups/InfoTumiMistiKoreDustoBoloSunteValoLageBANGLADESH/

১২। https://www.facebook.com/groups/tuhinkhan/

১৩। https://www.facebook.com/groups/Kazi.Shofiqul.Islam1/

ফেসবুক পেইজঃ

১। https://www.facebook.com/mominul6

২। https://www.facebook.com/princeshourob

৩। https://www.facebook.com/add.me.fs14

এর বাইরে কারো কোন গ্রুপ বা পেইজের অ্যাড্রেস জানা থাকলে কমেন্টে জানাতে পারেন তবে অবশ্যই সেই গ্রুপ বা পেইজ অ্যাক্টিভ থাকতে হবে। আর আপনারা তো জানেনই শুধু গ্রুপে বেশি মেম্বার আর পেইজে বেশি লাইক থাকলে তা অ্যাক্টিভ না, অ্যাঙ্গেইজমেন্টটা বড় ফ্যাক্টর এখানে !

নোটঃ এই টেকনিকে আপনি কান্ট্রি অ্যাডভান্টেজ পাবেন তবে টার্গেটেড কাস্টমারগুলোকে পরবর্তিতে ফিল্টার করে বের করতে হবে।

Writer : Mahdi Md Alauddin